Main Menu

সিলেটের মসজিদে মসজিদে ক্রন্দন, মহামারি মুক্তির প্রার্থনা

Sharing is caring!

অদৃশ্য এক মহামারির ছোবলে এলোমেলো হয়ে গেছে সব স্বাভাবিকতা। লাখ লাখ প্রাণ ঝরেছে নিদারুণ কষ্টে। এরই মধ্যে বিষন্নতায় ঘেরা চতুর্থ ঈদ উদযাপিত হচ্ছে গোটা বিশ্বে। আজ পবিত্র ঈদ-উল-আযহা।

এই ঈদের দিনে সিলেটজুড়ে মসজিদগুলোতে জামাত শেষে মুসল্লিদের চোখে ছিল জল, মনে ছিল করোনার মহামারি থেকে মুক্ত পৃথিবীর আকুতি।

সিলেটে পাঁচ হাজারেরও বেশি মসজিদে আজ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ৭টা, ৮টা ও ৯টায় এসব জামাত অনুষ্ঠিত হয়। বৃষ্টি উপেক্ষা করে মুসল্লিরা ভিড় জমান মসজিদে।

ঈদের নামাজ আদায়ের পর মনোযোগ দিয়ে খুতবা শুনেন মুসল্লিরা। এরপর দুরুদ ও ঝিকির শেষে মহান আল্লাহর দরবারে প্রার্থনার হাত তুলেন তারা।

প্রার্থনায় আল্লাহর কাছে সামনের-পেছনের সমস্ত গুণাহের জন্য ক্ষমা চান সবাই। কামনা করেন দেশ ও জাতির উন্নতি। সৎ ও সত্য পথে চলার জন্য সবাই সাহায্য প্রার্থনা করেন মহান রবের।

কেঁদে কেঁদে মুসল্লিরা মহামারি করোনাভাইরাসমুক্ত পৃথিবীর কামনা করেন। পৃথিবীর বুক থেকে মহান আল্লাহ যেন করোনাকে সরিয়ে দেন, সেই আকুতি ছিল সবার কণ্ঠে। মহামারিতে যারা প্রাণ হারিয়েছেন, তাদেরকে শহীদী মর্যাদাদানের জন্য প্রার্থনা করা হয়। যারা সংক্রমিত হয়েছেন, তাদের জন্য চাওয়া হয় সুস্থতা।

এছাড়া যারা কোরবানি দিচ্ছেন, তাদের ত্যাগ যেন আল্লাহ কবুল করেন, ছিল সেই প্রার্থনাও। নিজের মনের আকুতিগুলো মুসল্লিরা মহান সৃষ্টিকর্তার দরবারে পেশ করেন, চান সর্বোত সাহায্য।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*