Main Menu

সময়ের অনেক আগেই ড্র মেনে নেয় দুই দল

শেষ দিনে তাইজুল ইসলামের লড়াইয়ের সুবাদে বাংলাদেশ জয়ের আশা দেখতেই শুরু করে দিয়েছিল। তবে স্বাগতিকদের সেই আশা পূরণ হতে দেয়নি শ্রীলঙ্কার দুই ব্যাটসম্যান নিরোশান ডিকওয়েলা আর দীনেশ চন্দিমাল। তাদের প্রতিরোধে চট্টগ্রাম টেস্ট শেষ হলো নিষ্প্রাণ ড্রয়েই।

১৭ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ৩৯ রান নিয়ে চতুর্থ দিন শেষ করা শ্রীলঙ্কা আজ দিনের শুরুটা করেছিল ইতিবাচক ক্রিকেট দিয়ে। দিনের প্রথম দশ ওভারেই তুলে ফেলেছিল ৬০ রান। শ্রীলঙ্কা ১০০ ছোঁয় ২৭ ওভারে।

তবে তার একটু পরেই কুশল মেন্ডিস বিদায় নেন। দলীয় ১০৬ রানে তার বিদায়ের পর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি আগের ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসও। তাতে মধ্যাহ্ন ভোজের বিরতিতে শ্রীলঙ্কা যায় একটু অস্বস্তি নিয়েই। আগের দিন ওশাদা ফার্নান্দোকে সরাসরি থ্রোয়ে রানআউট করেছিলেন তাইজুল। এরপরের তিন উইকেটও তুলে নিয়েছিলেন তিনিই।

বিরতির পর দ্বিতীয় সেশনে শ্রীলঙ্কা হারায় আরও দুই উইকেট। তার একটাও তুলেছিলেন তাইজুলই। মধ্যাহ্ন বিরতির পর তার শিকার বনে যান দিমুথ করুণারত্নে। এর একটু পর সাকিব আল হাসান ফেরান ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে। ১৬১ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে লঙ্কানরা তখন বড় বিপদের প্রমাদই গুনছিল, আর বাংলাদেশ দেখছিল জয়ের আশা।

কিন্তু এরপরই প্রতিরোধ গড়ে বসলেন চন্দিমাল আর ডিকওয়েলা। দুজনের অপরাজিত ৯৯ রানের জুটি ম্যাচটা ধরাছোঁয়ার বাইরেই নিয়ে যায় বাংলাদেশের। ফলে নির্ধারিত সময়ের অনেক আগেই ড্র মেনে নেয় দুই দল।