Main Menu

শুভ জন্মদিন ববিতা

Sharing is caring!

বাংলা চলচ্চিত্রের এক নন্দিত অভিনেত্রীর নাম ববিতা। ৭০ ও ৮০ দশকে লাবণ্যময়ী নায়িকা হয়ে বাংলা চলচ্চিত্রের সাদাকালো পর্দায় আলো ছড়ানো এই অভিনেত্রী এখনো সমান জনপ্রিয়। অভিনয়েও রয়েছেন নিয়মিতই। কালের বিবর্তনে তিনি নায়িকা থেকে সিনিয়র চরিত্রে এসেছেন, কিন্তু অভিনয়ের গুণে এখনো তিনি অনন্যা। খ্যাতিমান এই অভিনেত্রীর আজ জন্মদিন। শুভ জন্মদিন ববিতা।

ববিতা ১৯৫৩ সালের ৩০ জুলাই তৎকালীন যশোরে (বর্তমান বাগেরহাট) জন্মগ্রহণ করেন। তার আসল নাম ফরিদা আক্তার পপি। কিন্তু চলচ্চিত্রে আসার পর পরিচিতি পেয়েছেন ববিতা নামে। পৈতৃক বাড়ি যশোরে হলেও বাবার চাকরির সুবাদে বাগেরহাটে থাকতেন তারা। পারিবারিকভাবেই বলা চলে তারা অভিনয়শিল্পী গোষ্ঠী। কারণ তার বড় বোন সুচন্দা এবং ছোট বোন চম্পা বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী। এছাড়া জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ওমর সানি তার ভাগ্নে এবং সেই সুত্রে মৌসুমী তার ভাগ্নে বউ। আবার চিত্রনায়ক রিয়াজ তার চাচাত ভাই এবং নির্মাতা জহির রায়হান তার ভগ্নিপতি।

ববিতার শিক্ষাজীবন শুরু হয় যশোর দাউদ পাবলিক বিদ্যালয়ে। সেখানে পড়াকালীন বড় বোন সুচন্দা চলচ্চিত্রে অভিষেকের সুবাদে পরিবারসহ ঢাকায় চলে আসেন ববিতা। গেন্ডারিয়ায় গড়েন আবাস। উল্লেখযোগ্য কোনো শিক্ষাগত সার্টিফিকেট না থাকলেও ববিতা একজন অভিনেত্রী হিসেবে দারুণ দক্ষতা দেখিয়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন দেশের ভাষা শিখেও নিজেকে করেছেন স্বশিক্ষিত।

চলচ্চিত্রে আসার পেছনে ববিতার জন্য সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণা তার বড় বোন সুচন্দা। কিংবদন্তি নির্মাতা জহির রায়হানের ‘সংসার’ ছবিতে শিশুশিল্পী হিসেবে ১৯৬৮ সালে অভিষেক হয় ববিতার। এই চলচ্চিত্রে তিনি রাজ্জাক-সুচন্দার মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেন। ববিতার নাম ফরিদা আক্তার পপি থেকে ‘ববিতা’ হয় জহির রায়হানের ‘জ্বলতে সুরুজ কি নিচে’ ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে। নায়িকা হিসেবে ববিতার প্রথম ছবি ‘শেষ পর্যন্ত’। এটি মুক্তি পায় ১৯৬৯ সালের ১৪ আগস্ট, যেদিন ববিতার মা মৃত্যুবরণ করেছিলেন। এরপর থেকে অভিনয় নায়িকা হিসেবে শাসন করেন ৭০ দশক। তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেন দর্শকের কাছে। বাণিজ্যিক ছবির অন্যতম সফল নায়িকা হিসেবে গণ্য করা হয় ববিতাকে। কেননা গ্রামীণ মেয়ের চরিত্রে কিংবা শহরের মডার্ণ তরুণী, সব চরিত্রেই তিনি সমান দক্ষতা দেখিয়েছেন।

অভিনয়ের নৌকায় পাল তুলে এখনো সগৌরবে টিকে আছেন কিংবদন্তি অভিনেত্রী ববিতা। আদর্শ অভিনেত্রী হিসেবে তিনি যুগের পর যুগ বাংলা
চলচ্চিত্রের দর্শকের হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন পরম ভালোবাসায়।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*