Main Menu

ব্যতিক্রমী আবহে আজ পবিত্র হজ

Sharing is caring!

‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক। ইন্নাল হামদা ওয়ান নিয়মাতা লাকা ওয়াল মুলক। লা শারিকা লাক।’ অন্য বছর ৯ জিলহজ তারিখের দিন লাখ লাখ কণ্ঠে উচ্চারিত তালবিয়ার ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠতো আরাফাত ময়দান। এবার পরিস্থিতি ভিন্ন। মহামারি করোনার কারণে সৌদি আরবের বাইরে কোনো দেশ থেকে কেউ পবিত্র হজপালনের সুযোগ পায়নি। মাত্র দশ হাজার হজযাত্রী এবার হজপালন করছেন।

যুদ্ধ ও মহামারির কারণে এর আগেও হজ সীমিত মানুষের উপস্থিতিতে হয়েছে। তবে সৌদি রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পর প্রতিবছরই অনেকটা নির্বিঘ্নেই হজ পালিত হয়েছে। সেই ইতিহাসে এবার যোগ যোগ হলো- ভিন্নমাত্রার হজ।

নজিরবিহীন স্বাস্থ্যবিধি সুরক্ষা ও সৃশৃঙ্খল ব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে বুধবার (২৯ জুলাই) সকাল থেকে হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। মক্কায় চারদিনের কোয়ারেন্টাইন শেষে এদিন সকালে মক্কা থেকে প্রায় ৭৫ কিলোমিটার দূরে হাজিরা ‘কারনুল মানাযেল’ নামক মিকাত থেকে ইহরাম পরিধান করে মক্কায় এসে তাওয়াফে কুদুম শেষে মিনাযাত্রা করেছেন। মিনাযাত্রার মধ্য দিয়ে হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে প্রায় ১০০ বছরের মধ্যে এই প্রথম সৌদি সরকার হজে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। হজ করতে না পেরে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের ধর্মপ্রাণ লাখ লাখ মুসলমান গভীর মর্মপীড়ায় ভুগছেন। তাওয়াফে কুদুমের আনুষ্ঠানিকতায় এবার দেখা গেছে অচেনা দৃশ্য। চিরচেনা ভিড় নেই। নেই মক্কার অলি-গলিতে ইহরাম পরিহিত হাজিদের ব্যস্ততা। করোনাকালে অনেকটা বিষাদের আবহেই শুরু হয়েছে ইসলামের অন্যতম স্তম্ভ হজের আনুষ্ঠানিকতা।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*