Main Menu

বাংলাদেশের রাজনীতিতে বেড়েছে চীনের প্রভাব

হঠাৎ করেই বাংলাদেশের রাজনীতিতে তৎপর হয়ে উঠেছে চীন। সম্প্রতি দেশের রাজনীতিতে আলোচিত কয়েকজন নেতার সঙ্গে বৈঠক করেছেন চীনা প্রতিনিধিরা।বাংলাদেশের নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য অসুস্থ তরিকুল ইসলামকে দেখতে তাঁর বাসায় পর্যন্ত গিয়েছেন চীনের রাষ্ট্রদূত।

পূর্বে চীনের মনোযোগ ছিল শুধু অর্থনৈতিক আধিপত্যের দিকে। অর্থনৈতিকভাবে দেশের নির্ভরতা বাড়ানোই ছিল চীনের একমাত্র লক্ষ্য। তবে গত তিন চার বছরে চীন তাদের ওই অবস্থান থেকে কিছুটা সরে এসেছে। বর্তমানে কোনো দেশের রাজনৈতিক বিষয়েও প্রভাব রাখে চীন। যার অংশ হিসেবে ভুটান, নেপাল, মায়ানমারসহ সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যেও চীনের প্রভাব আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে।

একাধিক সূত্র বলছে, এই সরকারের আমলে চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক ইতিহাসের যেকোনো সময়ের চেয়ে ভালো। সম্প্রতি সাবমেরিন ক্রয়, পাওয়ার প্লান্টসহ অনেক চুক্তিই হয়েছে চীনের সঙ্গে। সম্প্রতি বাংলাদেশ ঘুরে গেছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং।

আজ রবিবারই চীনের উদ্দেশে রওয়ানা দিয়েছে আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধিদল। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খানের নেতৃত্বে ১৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল চীন সফরে গিয়েছে। জানা গেছে, গত কয়েকমাস পূর্বে চীনের ক্ষমতাসীন কম্যুনিস্ট পার্টির পক্ষ থেকে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে দাওয়াত দেওয়া হয়েছিল। আওয়ামী লীগ নেতাদের এই চীন সফরকে তাৎপর্যমূলক বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।