Main Menu

ফ্রান্সের অর্থনীতিতে অশনিসংকেত

Sharing is caring!

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামনে রেখে আবারও ফ্রান্সের অর্থনীতিতে অশনিসংকেত দেখা দিয়েছে। অর্থবছরের শেষ প্রান্তিকে অর্থনীতি ৯-১০ শতাংশ সংকুচিত হতে পারে বলে হুশিয়ার করেছে দেশটির জাতীয় পরিসংখ্যান সংস্থা ইনসি এ পূর্বাভাস দিয়েছে। একই সময়ে দেশজ উৎপাদন ২ দশমিক ৬ শতাংশ কমে যাওয়ারও আশঙ্কা প্রকাশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।
শীতে করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত মাসের শেষের দিকে নতুন করে লকডাউন আরোপ করে ফরাসি সরকার। তবে তা আগের মত অতটা কঠোর নয়। এ কারণে ইনসি ধারণা করছে, অর্থনীতিতে এর প্রভাবও হবে আগেরবারের তুলনায় কিছুটা কম।
ইনসি বলেছে, এপ্রিলে যদি অর্থনৈতিক কার্যক্রম মহামারীপূর্ব সময়ের চেয়ে ৩০ শতাংশ সংকুচিত হয়ে থাকে, তবে নভেম্বরে এ হার ১৩ শতাংশের আশেপাশে থাকবে বলে আশা করা যায়।
পরিস্থিতিতে উন্নতি হওয়া সাপেক্ষে আগামী ডিসেম্বরের শুরুর দিকেই লকডাউন তুলে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে ফ্রান্সের। এমনটি হলে চতুর্থ প্রান্তিকে দেশটির জিডিপি সংকোচন ২ দশমিক ৫ শতাংশের মধ্যেই সীমিত থাকবে বলে আশা করছে ইনসি। আর যদি পুরো ডিসেম্বর লকডাউন চলে, তবে অর্থনৈতিক পতনের হার ৬ শতাংশে গিয়ে ঠেকতে পারে বলে মনে করছে তারা।
আর এর মাঝামাঝি পরিস্থিতিতে অর্থনীতির অবস্থা কেমন দাঁড়াবে? ইনসি বলছে, যদি ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে বেশির ভাগ বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করে সামান্য কিছু বলবৎ রাখা হয়, তবে জিডিপির পতন দাঁড়াতে পারে ৪ দশমিক ৫ শতাংশ। আর এমনটি হলে ফরাসি অর্থনীতি করোনাপূর্ব সময়ের তুলনায় সংকুচিত হবে ৮ শতাংশ। সেপ্টেম্বর শেষে এ হার ছিল ৪ শতাংশ।





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*