Main Menu

দুর্ভাগ্য হলো এই সংসদে একের পর এক সদস্য হারাচ্ছি

Sharing is caring!

‘দুর্ভাগ্য হলো এই সংসদে একের পর এক সদস্য হারাচ্ছি। এটা সত্যিই খুব দুঃখজনক। এ রকম প্রতিদিন, প্রতি মুহূর্তে শোক প্রস্তাব নিতে চাই না। আল্লাহ্ সবাইকে সুস্থ রাখুক।’

বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য মাসুদা এম রশীদ চৌধুরীর মৃত্যুতে জাতীয় সংসদে উত্থাপিত শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে আজ মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ওই আলোচনায় আরো অংশ নেন বিরোধীদলীয় উপনেতা জি এম কাদের, বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা, জাতীয় পার্টির সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও শামীম হায়দার পাটোয়ারী, বিএনপির হারুনুর রশীদ, আওয়ামী লীগের সিমিন হোসেন রিমি, আবদুস সোবহান মিয়া, সৈয়দা জোহরা আলাউদ্দিন, মোসলেম উদ্দিন আহমেদ, ওয়াশিকা আয়শা খান ও নাজমা আক্তার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দুর্ভাগ্য হলো এই সংসদের একের পর এক সদস্য হারাচ্ছি। এবার যখন শুরু করলাম দুইজন সংসদ সদস্য হারালাম। আবার এবার মুলতবি অধিবেশনের আগে কালকেই (গতকাল) পেলাম এই মৃত্যুর খবর। সত্যি খুবই হৃদয় ভারাক্রান্ত হলো।’

এমপি মাসুদা রশীদ চৌধুরীকে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তিনি অত্যন্ত বিদুষী ছিলেন। তাঁর মতো শিক্ষা-দীক্ষা ও জ্ঞানসম্পন্ন মানুষ মেয়েদের মধ্যে কমই পাওয়া যায়। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স পাস করে বিদেশে পড়ালেখা করেছেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছেন। ডিবেটিং ও রোভার স্কাউট- সর্বক্ষেত্রে তাঁর বিচরণ ছিল। তিনি একাধারে রাজনীতিবিদ, চিত্রশিল্পী, সমাজসেবক ও নারী উদ্যোক্তা। খেলাধুলাসহ সব ক্ষেত্রে নারীদের নতুনভাবে প্রেরণা জুগিয়েছেন। এ রকম বহু গুণসম্পন্ন মানুষ আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। এটা আমাদের সমাজের জন্য বিরাট ক্ষতিসাধন হলো।’

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘মাসুদা রশীদ চৌধুরীর বহুমুখী প্রতিভা নারীসমাজকে প্রেরণা দেবে। সামনে এগিয়ে যাওয়ার শক্তি ও সাহস জোগাবে।’ করোনা মহামারি সংকটকালে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এই করোনাকালে সবাই যেন স্বাস্থ্য সুরক্ষাটা মেনে চলে। যারা টিকা নিয়েছেন তাদের প্রতিও অনুরোধ করব, তারাও সুস্থ থাকুক। আমাদের দেশের মানুষ এবং প্রবাসী যারা আছেন, প্রত্যেকেরই মঙ্গল কামনা করি।’

শোকপ্রস্তাবের ওপর আলোচনা শেষে মাসুদা এম রশীদসহ মৃত্যুবরণকারীদের বিদেহী আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এক মিনিট নীরবতা পালন ও তাঁদের আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া-মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন সরকারি দলের এমপি এনামুল হক। পরে সংসদের রেওয়াজ অনুযায়ী দিনের অন্যান্য কার্যক্রম স্থগিত করে অধিবেশন মুলতবি করা হয়। অধিবেশন আগামীকাল বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় আবার বসবে।

উল্লেখ্য, রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকালে মারা যান মাসুদা এম রশিদ চৌধুরী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক মাসুদা জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ছিলেন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*