Main Menu

ডিটেনশন সেন্টারে আটক ১৬০ জন বাংলাদেশি দেশে ফিরছেন

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম- এর সহায়তায় লিবিয়ার ডিটেনশন সেন্টারে আটকদের মধ্যে ১৬০ জন বাংলাদেশি দেশে ফিরছেন আজ বৃহস্পতিবার। ভোর সাড়ে ৬টায় তাদের বহনকারী বিমান ঢাকায় পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

এর আগে বুধবার বিকেলে (লিবিয়ার স্থানীয় সময়) বুরাক এয়ারের একটি ফ্লাইটে দেশের পথে যাত্রা শুরু করে। লিবিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল এস এম শামিম দেশটির মেতিগা বিমানবন্দরে উপস্থিত থেকে ১৬০ জনকে বিদায় জানান।

ত্রিপলীতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস বৃহস্পতিবার রাতে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, দূতাবাসের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার পর লিবিয়ার ডিটেনশন সেন্টারে আটকদের মধ্য হতে ১৬০ জন বাংলাদেশি নাগরিককে আইওএম- এর সহায়তায় দেশে প্রেরণ করা সম্ভব হয়েছে। আইওএম কর্তৃক ভাড়াকৃত লিবিয়ার বুরাক এয়ারের একটি ফ্লাইট (UZ222) মেতিগা বিমানবন্দর হতে ২৫মে বিকাল ৩টা ৪৫ মিনিটে উড্ডয়ন করেছে এবং ২৬মে স্থানীয় সময় সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে ঢাকায় অবতরণ করবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল এস এম শামিম উজ জামান মেতিগা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রত্যাবর্তনকারীদের সাথে সাক্ষাৎ করেন এবং তাদেরকে বিদায় জানান। এসময় তিনি ফ্লাইটটি যথাসময়ে পরিচালনা করার ক্ষেত্রে সর্বাত্মক সহযোগিতার জন্য লিবিয়ার অভিবাসন অধিদফতর ও মেতিগা বিমানবন্দরসহ সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষ এবং আইওএমকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

উল্লেখ্য, দূতাবাসের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে সমন্বয়ের পর লিবিয়ার ডিটেনশন সেন্টারে আটক বাংলাদেশিদের সাথে সাক্ষাৎ করা হয় এবং তাদের কল্যাণে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। একইসাথে দেশে প্রত্যাবাসনের জন্য আইওএম- এর নিকট পর্যায়ক্রমে তাদের রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করা হয়। এপ্রেক্ষিতে ২৬মে আইওওএম- এর একটি চার্টার্ড ফ্লাইটে আরো ১৬০ জন বাংলাদেশিকে দেশে প্রত্যাবাসন করা হবে। এছাড়া অবশিষ্টদেরকেও দ্রুত সময়ের মধ্যে দেশে প্রত্যাবাসন করার জন্য দূতাবাসের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।