Main Menu

বার্মিংহামে তাক্বলীদ, মাজহাব এবং জুমআর খুতবার ভাষা শীর্ষক কনফারেন্সে বক্তারা

“জুমআর খুতবা আরবি ছাড়া অন্য ভাষায় দেয়া নাজায়েজ”

Sharing is caring!

তাক্বলীদ, মাজহাব এবং জুমআর খুতবার ভাষা শীর্ষক এক কনফারেন্সে বক্তারা বলেন- ‘সঠিকভাবে দ্বীন বুঝা এবং মানার জন্য মাজহাব মানা জরুরী। মুসলিম উম্মাহ নানা সংকটে নিমজ্জিত থাকলেও একটি মহল মিমাংসিত ছোট-খাট মাসআলা-মাসায়েল নিয়ে উম্মাহকে বিভক্তি এবং বিভ্রান্তির মধ্যে ঠেলে দিচ্ছে। এরা ইসলাম ও মুসলমানের শত্রু‘। তাক্বলীদ, মাজহাব এবং জুমআর খুতবার ভাষা শীর্ষক এই কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়েছে বার্মিংহামের স্মল হীথে।

উলামা পরিষদ মিডল্যান্ডস কর্তৃক আয়োজিত এ কনফারেন্স গত ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার অনুষ্ঠিত হয়। মাগরিবের পর থেকে নিয়ে রাত সাড়ে এগারোটা পর্যন্ত বিপুল সংখ্যক দর্শক-শ্রোতার উপস্থিতিতে এ কনফারেন্সে স্থানীয় উলামায়ে কেরামগণ ছাড়াও যুক্তরাজ্যের প্রখ্যাত উলামায়ে কেরামগণ বিষয়ভিত্তিক গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা রাখেন।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ফয়েজী। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মুফতি তাজুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে ইংলিশে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার মাওলানা হাবিবুল্লাহ। মাওলানা আব্দুল্লাহ ফাহিম এটির বাংলা অনুবাদ করেন। বাংলা প্রবন্ধটি দর্শক-শ্রোতার উদ্দেশ্যে তুলে ধরেন মাওলানা এনামুল হাসান ছাবির। শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা হাফিজ রুহুল আমিন।

কনফারেন্সে আগত বিশষ্ট উলামায়ে কেরামগণের মধ্যে আলোচনা রাখেন- বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন, ব্রাডফোর্ডের জামিয়া খাতামুন্নাবিয়িন এর প্রিন্সিপাল মুফতি সাইফুল ইসলাম, ইক্বরা টিভির ভাষ্যকার মুফতি আব্দুল মুনতাকিম, খলিফায়ে মদনী হযরত মাওলানা আলী আসগর নূরী চৌধুরী (র.) এর সাহেবজাদা মাওলানা হাসান নূরী চৌধুরী।

স্থানীয় উলামাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- মাওলানা ইখলাছুর রহমান, মাওলানা আব্দুল হাফিজ, শাইখুল হাদীস মাওলানা মর্তুজা হাসান খান, মাওলানা আব্দুল আউয়াল,মাওলানা শেখ নূরে আলম হামিদী, মাওলানা আনহারুল ইসলাম চৌধুরী, হাফিজ ইকবাল হোসেন, মাওলানা মুদাচ্ছির আনওয়ার প্রমুখ।

বক্তারা জুমআর খুতবা আরবী ছাড়া অন্য ভাষায় দেওয়া নাজায়েজ এবং সুন্নতের খেলাপ উল্লেখ করে এ ব্যাপারে সাধারণ মুসল্লীকে সতর্ক করা উলামাদের দায়িত্ব উল্লেখ করেন।
রসুল (স.), সাহাবায়ে কেরাম এবং আইম্মাদের জামানা সহ সাম্প্রতিক কাল পর্যন্ত জুমআর খুতবাকে জিকর-ইবাদত হিসেবে ধারাবাহিকভাবে উম্মাহ মেনে আসছে উল্লেখ করেনে উপস্থিত ফক্বিহগণ। তারা আরো বলেন জিকর-ইবাদতের ভাষা একমাত্র আরবীই হয়ে থাকে।

কনফরেন্সে বক্তারা- একশ্রেণীর মানুষের সহীহ হাদীস মানার নামে আইম্মাদের উপেক্ষা করার প্রবণতায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তারা বলেন- সাধারণ মুসলমানদের জন্য আইম্মাদের ব্যাখ্যা ছাড়া দ্বীন সঠিকভাবে বুঝা সম্ভব নয়। বিশেষ করে বাহ্যত একই বিষয়ে ভিন্ন ভিন্ন হাদিসের বিদ্যমানতায় সঠিক সুন্নতের উপর আমল করতে আইম্মাদের মতামতই আমাদেরকে যথার্থ দিকনির্দেশনা দিতে পারে।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*