Main Menu

খাশোগি পুত্রের সঙ্গে যুবরাজ, টুইটারে নিন্দার ঝড়

নিহত সাংবাদিক জামাল খাশোগির দুই ছেলেকে ডেকে নিয়ে মঙ্গলবার শোক জানিয়েছে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মেদ বিন সালমান। এ ঘটনা নিয়ে সামাজিক মাধ্যম টুইটারে নিন্দার ঝড় বইছে। যুবরাজের সঙ্গে সাক্ষাতের সময় খাশোগির ছেলে সালেহের কষ্ট মাখা চেহারা নিয়েও দুঃখ প্রকাশ করেছেন অনেকে।

মঙ্গলবার রিয়াদের ইয়ামামা প্রাসাদে খাসোগির ছেলে সালাহ ও তার ভাই সাহেলকে স্বাগত জানান বাদশাহ সালমান ও যুবরাজ মোহোম্মেদ বিন সালমান। এ সময় তারা খাশোগির দুই ছেলের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন।

সৌদি আরবের সরকারি সংবাদ মাধ্যম সৌদি প্রেস এজেন্সিতে এই খবর এবং খাশোগির ছেলের সঙ্গে যুবরাজের করমর্দনের ছবি প্রকাশিত হয়। এতে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে টুইটার জুড়ে।

সৌদি রাজতন্ত্র বিশেষ করে যুবরাজ মোহাম্মেদের কড়া সমালোচক ছিলেন সাংবাদিক খাশোগি। ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ পত্রিকায় কলাম লেখার কারণে তার বড় ছেলে সালাহকে এতদিন সৌদি আরব সফর করতে দেয়া হয়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক খাশোগি পরিবারের এক বন্ধু মার্কিন সংবাদ সংস্থা এপিকে এ খবর জানিয়েছেন।

মানাল আল শরিফ নামের এক সৌদি নারী টুইটারে লিখেছেন, ‘জামাল খাশোগির ছেলে সালাহর সৌদি ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল। অথচ সমবেদনা জানানোর জন্য তাদের (সালাহ ও সাহেল) রাজপ্রাসাদে ডেকে নেয়া হয়েছে। সৌদি যুবরাজের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ ছবি দেখে আমি বিস্মিত হয়েছি।’

এই ছবিকে ‘নিষ্ঠুর’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন মধ্যপ্রাচ্যের মানবাধিকার কর্মী ফাদি আল কাদি। তিনি লিখেছেন, ‘এই সেই ভিডিও। জামাল খাশোগির পুত্র সালাহ এতদিন সৌদিতে নিষিদ্ধ ছিল। আর এখন তিনি সেই ব্যক্তির সঙ্গে করমর্দন করছেন, যে কি-না তার বাবার খুনের সঙ্গে জড়িত।’

এ সম্পর্কে কাউন্সিল অব আরব-ব্রিটিশ আন্ডারস্ট্যান্ডিং সংস্থার প্রধান ক্রিস দোয়েলে বলেন, খাশোগির পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে নিজেদের সুনাম ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেছিল সৌদি রাজ পরিবার। কিন্তু সামাজিক মাধ্যমে এর প্রতিক্রিয়া দেখে মনে হচ্ছে তাদের সেই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘ছবিতে দেখা যাচ্ছে তারা (সৌদি বাদশাহ ও যুবরাজ) খাশোগির পরিবারকে সমাবেদনা জানাচ্ছেন। কিন্তু সালেহের চেহারায় যে অভিব্যক্তি ফুটে উঠেছে তা ১ হাজার শব্দ দিয়েও বর্ণনা করা সম্ভব না। সৌদি বাদশাহ ও যুবরাজের সঙ্গে সাক্ষাতের সময় তার গোটা চেহারা জুড়ে কষ্টের ছাপ স্পষ্ট।’

‘আমার ধারণা, সোশ্যাল মিডিয়ার অন্য লোকজনও একই কথা ভাবছেন। আপনার জানেন, এটা সেই পুত্রের চেহারা, যিনি জানেন, তিনি তার পিতার হত্যাকারীর সঙ্গে করমর্দন করছেন। তাই সৌদি জনতার সমর্থন ও সমবেদনা লাভের উদ্দেশে গ্রহীত যুবরাজের এই উদ্যেগ পুরোপুরি ব্যর্থ।’ বলছিলেন ক্রিস।

গত ২ অক্টোবর গত ২ অক্টোবর তালাক সংক্রান্ত কাগজপত্র আনতে ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে যান জামাল খাশোগি। এরপর তাকে আর দেখা যায়নি। তুরস্ক বলছে, ওই কনস্যুলেটের অভ্যন্তরেই তাকে খুন করা হয়। এ হত্যার কথা স্বীকার করেছে রিয়াদ। এ হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে তারা ১৮ সৌদি নাগরিককে আটক করেছে।