Main Menu

ক্রিকেট কড়চা ১ 

Sharing is caring!

সাদা চামড়ার কেউ পতাকা বেচতে দেখলে, সাদা কালো কেউ বাংলাদেশের জার্সি পরে বাংলাদেশ সাপোর্ট করলে’ও অবাক হওয়ার কিছু নাই । আমরা তো এই চাইছিলাম, না কি?
অপেক্ষা করেন, আরো দেখার বাকী আছে!! কেমনে? কয়েকটা ম্যাচ যাইতে দেন। যখন খেলার সমীকরন জটিল থেকে জটিলতর হতে থাকবে: এ ওর সাথে জিতলে আমাদের লাভ, এ ওর সাথে হারলে’ই আমারা চলে যাবো, যাতীয় সমীকরন শুরু হবে, তখন দেখবেন সাদা কালো, বনেদী, নয়া কোনো বিষয় না। প্রানের শত্রু বন্ধু হবে, গলাগলির বন্ধু রাতারাতি গালাগালির শত্রু হবে, এক কলি কাল অবস্থা। আমি এখন সাউথ আফ্রিকার কড়া সাপোর্টার!!

কতো ধরনের যে কুত্তা আছে !! বাংলাদেশকে আন্ডার ডগ, ওভার ডগ শুনে শুনে আসছিলাম। এখন শুনি বাংলাদেশ আর কুত্তা না। তাদের আর আতকে উঠার কোনো কারন নাই, হারলে মনে করবে তাই কপালে ছিলো, জিততে পারে নাই কারন বাংলাদেশ ভালো টিম।

আমি এক বড় ওপেন ফ্লোরে কাজ করি। আমি ছাড়া সবাই মহিলা। অনুমান করি ব্যাক্তিগত জীবনে তারা তাদের পুরুষদের ফুটবল প্রীতি নিয়ে বিরক্ত। ফুটবলে আমার তেমন আসক্তি নাই দেখে তারা বেশ একটা প্রীতো। এ দুই দিন আমার ক্রিকেট প্রীতি দেখে বেশ একটা আনন্দ পাচ্ছে। ক্রিকেটের ক ও জানেনা, কিন্তু এটা যে ফুটবল না তাতে’ই প্রীত। এখানে ছুটি নিতে হলে নিদেন পক্ষে দুই সপ্তাহের নোটিশ দিতে হয়। আমার দুই দিনে ছুটি হলো !!! আমার ম্যানেজার মহিলা নিজ থেকে আমাকে তাড়া দিলো ছুটি নে, ছুটি নে। আমি তাদের ক্রিকেট প্রীতি ভালোবাসি। জানিনা শনিবারের পরে পরিবেশটা কেমন থাকে !!






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*